শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
নিবন্ধনবিহীন আইপি টিভিতে সংবাদ প্রচার নিষিদ্ধ   র‌্যাবেরা যে ভালো কাজ করে যাচ্ছে সমালোচনা কারিদের চোখে পড়ে না টেকনাফ থেকে র‍্যাবের অভিযানে অস্ত্র ইয়াবাসহ আটক ১ সরকারী খাস জায়গায় নির্মাণাধীন মুরগীর খামার বন্ধ করে দিলো এসিল্যান্ড বড়হাতিয়ায় পাহাড় কাটার দায়ে ২জন শ্রমিককে জরিমানা, এক্সক্যাভেটর জব্দ নির্ভয়ে থানায় আসুন,পুলিশি সেবা গ্রহণ করুনঃনবাগত ওসি আতিকুর রহমান কর্ণফুলী এলাকায় সিগারেটের আগুনে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে চট্টগ্রামসহ ১২ জেলা স্বাস্থ্যবিধি মেনে জেলা প্রশাসকদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ প্রতিটি জেলায় ট্রাক চালকদের চাঁদাবাজির যেন শিকার হতে না হয় কৃষিমন্ত্রী

অমানবিক একজনকে আমি মানবতা দেখিয়েছি সেটাই বেশি প্রধানমন্ত্রী

স্কটল্যান্ড, লন্ডন ও ফ্রান্সে দুই সপ্তাহের সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আমার অথরিটিতে বাসায় থাকতে দিয়েছি। বাকিটা আইনের ব্যাপার। অমানবিক একজনকে আমি মানবতা দেখিয়ে বাসায় থাকতে দিয়েছি। আমার কাছে আর কত চান।

বুধবার (১৭ নভেম্বর) বিকালে সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়ার বাইরে যাওয়ার সুযোগ নিয়ে জানতে চাইলে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী বলেন আমার মনে হয় এই প্রশ্ন করার জন্য আপনাদের লজ্জা হওয়া দরকার। যারা আমার বাপ-মা, ভাই, আমার ছোট রাসেলকে পর্যন্ত হত্যা করিয়েছে। তারপরও আমরা অমানুষ না। অমানুষ না দেখেই তাকে (খালেদা জিয়া) তার বাসায় থাকার ব্যবস্থাটুকু আমার এক্সিকিউটিভ অথরিটিতে আমার হাতে যতটুকু আছে সেটুকু দিয়ে তার বাসায় থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন গ্রেনেড হামলার পর আমাদের এতজন আহত। ২২ জন মারা গেছে। একদিনও পার্লামেন্টে সেটার ওপর আলোচনা করতে দেয়নি। যে এত বড় অমানবিক—তাকেও আমরা মানবতা দেখিয়েছি।

লিখিত বক্তব্য শেষে সাংবাদিকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন প্রধানমন্ত্রী। যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স সফর সম্পর্কে অবহিত করতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংবাদ সম্মেলনে যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী। সাংবাদিকরা যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের শাপলা হল থেকে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন জনগণের প্রতি যে দায়িত্ববোধ তা নিয়ে আমরা সবসময় সচেতন। করোনাকালে গ্রাম পর্যায়ে কৃষক থেকে শুরু করে কোনও শ্রেণি-পেশার মানুষ নেই যাদের অর্থ দিয়ে সাহায্য করিনি। জিনিসপত্রের দাম যাতে নিয়ন্ত্রণে থাকে সেই ব্যবস্থা নিয়েছি। উৎপাদন বাড়ানোর ব্যবস্থা নিয়েছি।

তেলে দাম সম্পর্কিত সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন বাজারে তেলের দাম বেড়েছে। আমাদের তেল কিনে আনতে হয়।

এ সময় সাংবাদিকদের কাছে প্রধানমন্ত্রী প্রশ্ন রাখেন, ‘কত টাকা ভর্তুকি দিতে হয় ডিজেলে? পরে নিজেই উত্তরে বলেন ২৩ হাজার কোটি টাকা। বিদ্যুৎসহ সব মিলিয়ে ৫৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়ে থাকি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন কৃষকদের জন্য সারের দাম কমিয়েছি। যে সার ৯০ টাকা ছিল তা ১৫-১৬ টাকা করেছি। কৃষিতে প্রতিটি ক্ষেত্রে সহায়তা দিয়েছি। কার্ড করে দিয়েছি। এখন কৃষক ১০ টাকায় অ্যাকাউন্ট খুলতে পারে। যার মাধ্যমে ভর্তুকির টাকা সরাসরি তাদের কাছে যায়।’

তিনি বলেন করোনার সময় ব্যবসায়ীদের বিশেষ প্রণোদনা দিয়েছি। সুদের হার কমিয়ে অর্ধেক সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছি। শ্রমিকরা যাতে বেতন পায় সে ব্যবস্থা করেছি।

অনেক উন্নত দেশ খাদ্যের জন্য হাহাকার করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন লন্ডনের সুপার মার্কেটে সাপ্লাই নেই। খাবার জিনিস পর্যন্ত পাওয়া যায় না। বাংলাদেশে খাদ্যের জন্য হাহাকার নেই।’

‘সবাই টাকা উপার্জন করে ট্যাক্স কতজন দেয়?’ সাংবাদিকদের প্রতি এমন প্রশ্ন ছুড়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন আমাদের চাল ডাল, বাড়ি-গাড়ি সবই আছে। তারপরও ট্যাক্স ফাঁকি দেওয়ার দিকে নজর, এটাই বাস্তবতা। সরকারের টাকা আসবে কোথা থেকে? এখন বিদ্যুৎ সবার ঘরে ঘরে। এখানেও ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। কিন্তু উৎপাদন খরচ তুলতে পারছি না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন দলীয় প্রতীক দেওয়ার কারণে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে সংঘাত হচ্ছে—কথাটি ঠিক নয়। তবে কোনও সংঘাত গ্রহণযোগ্য নয়।

তিনি আরও বলেন কোথাও কোথাও সংঘাত হচ্ছে। কিন্তু আওয়ামী লীগ শুধু চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীক দিয়েছে। নির্বাচন মেম্বার পদেও হচ্ছে। তাদের মধ্যেও মারামারি হচ্ছে। তাছাড়া অন্যান্য দলও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। বিএনপি দলীয়ভাবে অংশ না নিলেও তাদের প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। সুতরাং দলীয় প্রতীক দেওয়ার কারণে সংঘাত হচ্ছে- কথাটি ঠিক নয়। আওয়ামী লীগের কেউ কোনও সংঘাতে জড়ালে তার বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রী ৩১ অক্টোবর থেকে ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত গ্লাসগো, লন্ডন ও প্যারিস সফর করেন। সফরকালে তিনি কপ-২৬ সম্মেলন, বাংলাদেশ বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন ২০২১, ইউনেস্কো সদর দফতরে সৃজনশীল অর্থনীতির জন্য ইউনেস্কো-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান, ইউনেস্কোর ৪১তম সাধারণ সম্মেলন, প্যারিস শান্তি ফোরাম, ইউনেস্কোর ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এবং অন্যান্য উচ্চ পর্যায়ের অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

প্রায় দুই সপ্তাহের সফর শেষে ১৪ নভেম্বর দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী। ওই সফর নিয়েই আজকের এ সংবাদ সম্মেলন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুক পেইজ