বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০ ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, সময় : ভোর ৫:০৫

ক্যাসিনো মুক্ত যুবলীগের নবযাত নতুন যাত্রা শুরু


প্রকাশের সময় :২০ নভেম্বর, ২০২০ ২:০৯ : অপরাহ্ণ

 সিএসপি নিউজ : সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শেখ ফজলুল হক মনির বড় ছেলে শেখ ফজলে শামস পরশের নেতৃত্বে ‘চাঁদাবাজি ও ক্যাসিনো মুক্ত’ যুবলীগের নতুন যাত্রা শুরু হয়েছে।

যুবলীগ সূত্রে জানা যায়, বিগত বছরে দেশব্যাপী চলমান অভিযানে ক্যাসিনো সম্পৃক্ততার অভিযোগে বিতর্কের মুখে পড়ে যুবলীগের বেশ কিছু প্রভাবশালী নেতা। বিতর্কের মুখে যুবলীগের সকল কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় সংগঠনের তৎকালীন চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে। এ ছাড়াও বহিস্কার করা হয় প্রায় ডজন খানেক নেতাকে।
জানা যায়, ক্যাসিনো সম্পৃক্ততার অভিযোগে অব্যাহতি ও বহিস্কারের পর সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। ওই বৈঠকে বয়স সীমা নির্ধারণ সহ সংগঠনটির অষ্টম জাতীয় কংগ্রেস আয়োজনের প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয় প্রেসিডিয়াম সদস্য চয়ন ইসলামকে আহ্বায়ক ও সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদকে সদস্য সচিব করে।
২০১৯ সালের ২৩ নভেম্বর অনুষ্ঠিত সংগঠনটির অষ্টম জাতীয় কংগ্রেসে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক চয়ন ইসলামের প্রস্তাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন শেখ ফজলে শামস পরশ। ওই কংগ্রেসে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন মহানগর উত্তর শাখার সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল। দীর্ঘ এক বছর পর গত ১৪ নভেম্বর সংগঠনটির পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়।
আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, আওয়ামী যুবলীগের নবনির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল ক্যাসিনো অভিযোগ মুক্ত একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা। সংগঠনের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের নেতৃত্বে সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা সফল হয়েছে। পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের মাধ্যমে যুবলীগ এক নতুন যাত্রা শুরু করলো।
নেতারা বলছেন, আগামী দিনে আওয়ামী যুবলীগ অতীতের মতোই উজ্জ্বল ভূমিকা পালন করবে।
যুবলীগের বিদায়ী কমিটির বেশ কয়েকজন নেতা বলছেন, নবগঠিত পূর্ণাঙ্গ কমিটি থেকে বাদ পড়েছেন বিদায়ী কমিটির অধিকাংশ নেতাই। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের পদায়ন করা হয়েছে। প্রদানের ক্ষেত্রে সাংগঠনিক দক্ষতা বিচক্ষণতা কে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করা হয়েছে। সর্বোপরি একটি বিতর্ক মুক্ত শুদ্ধ কমিটি উপহার দিতে পেরেছে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক।
প্রসঙ্গত ২০১৯ সালে ২৩শে নভেম্বর
সকালে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুবলীগের কংগ্রেসের উদ্বোধন করার পর বিকেলে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে বসে কাউন্সিল অধিবেশন।
সংগঠনের নেতৃত্ব নির্বাচনের এ অধিবেশনে কংগ্রেস প্রস্তুতি কমিটির চেয়ারম্যান চয়ন ইসলাম পরবর্তী চেয়ারম্যান হিসেবে পরশের নাম প্রস্তাব করলে বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ তা সমর্থন করেন। এ পদে আর কোনো নামের প্রস্তাব না ওঠায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় যুবলীগের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন পরশ।