সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০ ২৯শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, সময় : বিকাল ৩:১৯

গঙ্গায় ছেলের অস্থি বিসর্জন দিলেন বাবা, বিদায় সুশান্ত!


প্রকাশের সময় :১৮ জুন, ২০২০ ৮:১৯ : অপরাহ্ণ

সিএসপি ডেস্ক নিউজ :  বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) দুপুর। গঙ্গার মাঝবক্ষে নৌকায় সাদা পোশাক, মুখে মাস্ক পড়ে দাঁড়িয়ে আছেন কৃষ্ণ কুমার সিং- সদ্য প্রয়াত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের বাবা। বুকে আগলে রেখেছেন একমাত্র পুত্রের অস্থির ঘট। ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী আজ তা বিসর্জন দিতে হবে গঙ্গায়। যেন এক দুঃস্বপ্ন! এই বয়সে তরতাজা একটা প্রাণ, যার সঙ্গে কিনা কয়েক দিন আগেই পাহাড়ে বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান হল, সে যে এভাবে কাউকে কিছু না বলেই পাড়ি দেবে অন্যলোকে, কল্পনাও করতে পারেননি তিনি।

অস্থি বিসর্জনের আগে চোখের কোণে জল চিকচিক করে ওঠে। অনেক কষ্ট নিয়ে ছেলের এই শেষ সম্বলটুকু বুকে করে আগলে মুম্বই থেকে পাটনা এসেছেন কৃষ্ণ কুমার সিং। ভারতীয় একটি গণমাধ্যম সুত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে আদরের সেই ছেলের অস্থি বিসর্জন দিলেন পাটনার গঙ্গায়। সেখান থেকেই চিরতরের জন্য ভারাক্রান্ত হৃদয়ে একমাত্র ছেলে সুশান্ত সিং রাজপুতকে বিদায় জানালেন বাবা কৃষ্ণ কুমার সিং। অস্থি বিসর্জনের সময় সুশান্তের বাবা কৃষ্ণ কুমার সিংয়ের সাথে উপস্থিত ছিলেন সুশান্তের দিদি শ্বেতা সিং কৃতি ও ছয়-সাত জন নিকটাত্মীয়।

মাত্র ৩৪ বছর বয়সেই সবকিছুকে দূরে সরিয়ে সুশান্ত সিং রাজপুতের এভাবে পরপারে পাড়ি দেয়াটা মেনে নিতে পারছেন না কেউই। আদরের ভাইয়ের উদ্দেশে সুশান্তের দিদি শ্বেতা সিং কৃতি ফেসবুকে এক খোলা চিঠি লিখেছিলেন, ‘আমার আদরের ভাই, শেষ কটা মাস ভীষণ কষ্টে ছিলে বুঝতে পারছি। যদি জানতাম, তোমার সব যন্ত্রণা নিয়ে আমার যত খুশি আছে সবটা তোমায় দিয়ে দিতাম। যেখানেই থাকো, ভাল থেকো। তোমার উজ্জ্বল চোখ দুটো কত মানুষকে স্বপ্ন দেখতে শিখিয়েছিল। নিষ্পাপ ওই হাসিটা বলে দিত তোমার মনটা কেমন। যারা তোমায় ভালোবাসত, আজীবন বাসবে’। কিন্তু কোন এক রহস্যজনক কারনে কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সেই পোস্ট ডিলিট করে দিয়েছেন সুশান্তের দিদি শ্বেতা সিং কৃতি। এরকম একটি বেদনাদায়ক পোস্ট দিয়ে তা আবার ডিলিট করে দেয়া নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে জল্পনা-কল্পনা।