রোববার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সময় : বিকাল ৪:৪৮

চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জেলায় লক খুলে মোটরসাইকেল চুরি; চক্রের অন্যতম মুলহোতাসহ ৯ জন আটক


প্রকাশের সময় :২৭ মার্চ, ২০২১ ৮:৩১ : অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
চট্টগ্রাম ও কুমিল্লা জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এক হাজার মোটরসাইকেল চোর চক্রের অন্যতম মুলহোতাসহ ৯ জনকে আটক করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। এসময় চোরাইকৃত ২০টি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

আজ শনিবার (২৭ মার্চ) দুপুরের দিকে নগরের কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন এ তথ্য জানান।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, মিল্টন সরকার ওরফে মিল্টন কুমার সাহা (৪৪), মেহেদী হাসান (১৯), মাহমুদুল হাসান (২৪), আনোয়ারুল ইসলাম (৩৭), রফিকুল ইসলাম রিপন (৩৮), মো. ওবায়দুল কাদের (৪২), মো. শাখাওয়াত হোসেন ওরফে রুবেল হোসেন (২৫), শাহাদাত হোসেন সাজ্জাদ (২৭) ও মো. রিয়াজ (৩২)।

কোতোয়ালী থানা পুলিশ জানায়, এসআই মোঃ মনজুরুল আলম ভূঁঞা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কোতোয়ালী থানাধীন কদমতলী আটমার্চিং মোড়স্থ ফোরস্টার সিএনজি পেট্রোল পাম্পের সামনে অভিযান চালিয়ে নাম্বার প্লেট বিহীন একটি হাঙ্ক মোটরসাইকেল আরোহী মিল্টন সরকার (৪৪) ও মেহেদী হাসান (১৯) নামে দুইজনকে আটক করে এবং মোটরসাইকেলটি জব্দ করে। পরে তাদের দেয়া তথ্যে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ২০টি চোরাই মোটরসাইকেলসহ আটক করা হয় বাকি সদস্যদের।

১টি হিরো হোন্ডা কোম্পানীর ১৫০ সিসির হাঙ্ক ,কাগজপত্র বিহীন ১টি গ্লামর, ৭টি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল, ২টি ডিসকভার, ১টি এফজেড, ৩টি গ্লামর, ২টি ডিস্কোভার, ১টি ইয়ামাহা  ও ১টি পালসার, ১টি ইয়ামাহা এফজেড সহ ২০টি মোটরসাইকেল জব্ধ করা হয়।

কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন জানান, আটককৃত আসামীরা মোটসাইকেল চোরচক্রের সদস্য।  আসামীদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, চট্টগ্রাম মহানগরসহ দেশের বিভিন্ন জেলা হইতে হতে লক করা মোটরসাইকেল বিশেষ কায়দায় তৈরী মাষ্টার কবু ব্যবহার করে দ্রুততম সময়ে লক খুলে চুরি করে নিয়ে যায়।

তিনি বলেন, কেউ মোটরসাইকেল রেখে গেলে সিন্ডিকেটের একজন সদস্য মালিকের পিছু নেয়। অন্যজন লক খুলে গাড়িটি চুরি করে নিয়ে যায়। পুরো কাজটি সম্পন্ন করতে মাত্র ৩০ থেকে ৪০ সেকেন্ড সময় নেয় চক্রটি। আসামীদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এসআই মমিনুল হাসান জানান, আটককৃতরা জিজ্ঞাসাবাদে জানায় মোটরসাইকেল গুলোর কাগজপত্র নিয়ে আত্মীয়-স্বজন আসবে। কিন্তু দীর্ঘ সময় পরও মোটরসাইকেলগুলোর মালিকানার কোন কাগজপত্র দেখাতে পারে নাই। পরে মুখোমুখি জিজ্ঞাসাবাদে তারা সকলেই একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ এবং বিভ্রান্তিকর তথ্য দিতে থাকে।

তিনি আরও জানান,পরে সিডিএমএস সফটওয়্যার যাচাই করে জানা যায় মিল্টন সরকার এবং রফিকুল ইসলাম রিপন ইতিপূর্বে মোটরসাইকেল চুরির মামলায় জেল খেটেছে।

সিএস পি/কেসিবি/৮ঃ১২পিএম

ট্যাগ :