সোমবার, ৫ এপ্রিল ২০২১, ২২শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, সময় : রাত ৯:৪০

থার্টিফাস্ট নাইটে সিএমপি’র ১৬ নির্দেশনা


প্রকাশের সময় :৩০ ডিসেম্বর, ২০২০ ৮:৩৭ : অপরাহ্ণ
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

বিদায় নিচ্ছে ২০২০! আর নতুন বছর ২০২১ সালকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত আমরা সকলে। করোনা মহামারিতে অনেক প্রাণহানি, আর্থিক ক্ষতি ও ভোগান্তি হলেও নতুন আশার আলো নিয়ে ২০২১ সালকে স্বাগত জানানোর প্রস্তুতি নিচ্ছেন সকলে। সবাই ২০ সাল্কে বিদায় দিতে পারলেই বাঁচে কেননা পুরো ২০ সাল জুড়ে বিশ্বকে স্থবির করে দিয়েছে করোনা পরিস্থিতি। তাইতো অনেকেই বলে বিশে ভরা বিশ-সাল।আগামীকাল ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ সালের শেষ দিন রাতে ইংরেজী বর্ষ বিদায় থার্টিফাস্ট নাইট ও ২০২১ ইংরেজী বর্ষবরণ উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহনগরীর বিভিন্ন স্থানে নানাবিধ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।

আজ বুধবার ৩০ ডিসেম্বর বিকালে সিএমপি কমিশনারের উপস্থতিতে আয়োজিত এক সভায় ২০২১ ইংরেজী বর্ষবরণ উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নির্দেশনা জারি করা হয়।

ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনকালে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির যে কোন ধরনের আশঙ্কা রোধকল্পে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) বদ্ধপরিকর। সকল অনুষ্ঠান শান্তিপূর্ণ ও নিরাপদে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ কর্তৃক পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে চেকপোষ্ট স্থাপন, গীর্জা, হোটেল, ক্লাব, বিনোদন কেন্দ্রে পুলিশ মোতায়েন, টহল জোরদার, ট্রাফিক পুলিশের বিশেষ ব্যবস্থা ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম মহানগরের সার্বিক নিরাপত্তা ও আইন-শৃঙ্খলার স্বার্থে সম্মানিত নাগরিকদের জন্য বেশ কিছু নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নিদের্শনার মধ্যে রয়েছে-রাস্তা, ফ্লাইওভার, ভবনের ছাদ এবং প্রকাশ্য স্থানে কোন ধরনের জমায়েত/সমাবেশ/উৎসব করা যাবে না, থার্টি-ফার্স্ট নাইট উপলক্ষে আয়োজিত সভা, সমাবেশ এবং ধর্মীয়, সামাজিক, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসমূহে করোনা সংক্রান্ত সরকারি নির্দেশনাসমূহ ও যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে, উন্মুক্ত স্থানে নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে কোন ধরনের অনুষ্ঠান বা সমবেত হওয়া যাবে না বা নাচ, গান ও কোন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে না, কোথাও কোন ধরনের আতশবাজি/পটকা ফোটানো যাবে না, কোন ভবনের ছাদে আতশবাজি/পটকা ফোটানো হলে ভবনের মালিকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আগামীকাল ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টার পতেঙ্গা সী-বীচ ও পারকি বীচ এলাকায় কাউকে অবস্থান করতে দেয়া হবে না, ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরদিন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সকল লাইসেন্সকৃত বার ও মদের দোকান খোলা রাখা যাবে না, গাড়িতে উচ্চস্বরে গাড়ির হর্ণ বাজানো যাবে না কিংবা বেপরোয়া গতিতে গাড়ী বা মোটরবাইক চালানো যাবে না, আনন্দ উদযাপনের মধ্যে শালীনতা ও সৌহার্দ্য বজায় রাখতে হবে, মাদকদ্রব্য সেবন থেকে বিরত থাকতে হবে, মাদকাসক্ত অবস্থায় কাউকে পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে, সকল অনুষ্ঠানে নারীদের জন্য পৃথক ব্যবস্থা রাখতে হবে এবং নারীদের প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করতে হবে, নৈতিক মূল্যবোধ পরিপন্থী কর্মকান্ড হতে বিরত থাকতে হবে, অশোভণ আচরণ এবং বে-আইনী কার্যকলাপ হতে বিরত থাকতে হবে, হোটেলে ডিজে পার্টির নামে কোন স্পেস বা কক্ষ ভাড়া দেওয়া যাবে না, জনগণের শান্তি-শৃঙ্খলা বিঘ্নিত হয় এমন যে কোন কর্মকান্ড পরিহার করতে হবে এবং ৩১ ডিসেম্বও বৃহস্পতিবার রাত ১০টার পর সকল ফার্স্ট ফুডের দোকানসহ মার্কেট বন্ধ রাখতে হবে, চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ উপর্যুক্ত নিদের্শনা পালনে ব্যর্থ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

এছাড়া যে কোন গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা/দুর্ঘটনা তাৎক্ষনিক সিএমপি, পুলিশ কন্ট্রোল রুম, ফোন নম্বরঃ ০৩১-৬৩৯০২২, ০৩১-৬৩০৩৫২, ০৩১-৬৩০৩৭৫, ০১৬৭৬-১২৩৪৫৬, ০১৩২০-০৫৭৯৯৮ ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি সার্ভিস ৯৯৯ জানানোর জন্য অনুরোধ জানান সিএমপি।

যে কোন অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট সম্মানিত নাগরিকবৃন্দকে কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যদের সাহায্য গ্রহণের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

সিএস/কেসিবি/৮ঃ১০পিএম

ট্যাগ :