শুক্রবার, ৭ আগস্ট ২০২০ ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, সময় : সন্ধ্যা ৬:৫৭

বিয়েকে সহজ করে দিয়েছে; “করোনা”


প্রকাশের সময় :৩ জুলাই, ২০২০ ৮:৪৩ : অপরাহ্ণ

নূর মোহাম্মদ শাওন: 

সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশেও গত তিন মাস ধরে করোনার প্রভাবে বন্ধ রয়েছে বিয়ে, জন্মদিন, মেজবানসহ সব ধরনের সামাজিক অনুষ্ঠান। তবে এরমধ্যে অনেকেই ঘরোয়া ভাবেই বিয়ে সম্পন্ন করছেন।

কোন প্রকারের অনুষ্ঠান ছাড়াই সীমিত পরিসরে ছেলে-মেয়েরা এসব বিয়ের আয়োজন করছেন। ফলে বিয়ের খরচও কমে এসেছে ৭০-৮০ শতাংশে। যেখানে আগে উভয়পক্ষের খরচ হতো ছয় থেকে আট লক্ষ টাকা পর্যন্ত এখন সেখানে মাত্র বিশ হাজার টাকা থেকে এক লক্ষ টাকায় বিয়ে সম্পন্ন হচ্ছে। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বিয়ের পর অনেককেই পোস্ট দিতে দেখা যাচ্ছে। যেখানে খুব স্বল্প খরচেই বিয়েগুলো সম্পন্ন হচ্ছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম দারুস সুন্নাহ খাইরিয়া মাদ্রাসার সিনিয়র শিক্ষক হাফেজ মুফিজুর রাহমান আদিল বলেন, “ইসলামে বিয়েকে খুব সহজ করে দেয়া হয়েছে। যাতে যুবক-যুবতীরা নিজেদের চরিত্রকে হেফাজত করতে পারে। হাদিস শরীফে বলা হয়েছে, ‘হে যুব সম্প্রদায়, তোমাদের মধ্যে যাদের সামর্থ্য আছে তারা যেন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। যাতে তারা দৃষ্টিকে সংযত রাখতে পারে এবং নিজের চরিত্র হেফাজত করতে পারে।’

তিনি আরও যোগ করেন , যে সমাজে বিয়ে যত কঠিন হয়ে যায়, ঐ সমাজে যেনা তোতো সহজ হয়ে যায় । বর্তমানে আমাদের সমাজে বিয়ের আগেই ছেলে পক্ষ ঠিক করে দিচ্ছে মেয়ে পক্ষকে কতো হাজার লোক খাওয়াতে হবে, কি কি উপঢৌকন দিতে হবে। আবার মেয়ে পক্ষেরও কাবিনের একটা চাপ থাকে। যা উভয়পক্ষের উপর এক ধরনের বোঝা।

তিনি আরও বলেন, তথাকথিত আনুষ্ঠানিকতার নামে অযৌক্তিক খরচ বাড়ানোর কারণে বিয়েকে দিন দিন কঠিন করে ফেলা হচ্ছে। ফলে ইচ্ছে সত্ত্বেও যুবক-যুবতীরা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে পারছে না। এর কারণে অনেকেই অসামাজিক কাজে লিপ্ত হচ্ছে। করোনাভাইরাসের কারণে এখন দেখা যাচ্ছে, অনেকেই ছোট্ট পরিসরে বিয়ের আয়োজন করছেন। আকদ্ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিয়ে সম্পন্ন হচ্ছে। বড় কোন অনুষ্ঠান হচ্ছে না। বর্তমানে এই পরিস্থিতিতে অনেকেই আকদ শেষ করে বরের বাবা-মা ও বড় ভাই গিয়ে মেয়েকে উঠিয়ে নিয়ে আসে। বিয়ে এমনই হওয়া উচিত বলে মনে করেন এ ইসলামিক ব্যাক্তিত্ব । এ রীতি যেন বহমান থাকে এমনটাই চাওয়া তার।