মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০ ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, সময় : রাত ৪:০৫

ভিজিট ভিসা ব্যবহার করে কেউ যেন কাজের উদ্দেশে বিদেশ যেতে না পারে


প্রকাশের সময় :২৫ অক্টোবর, ২০২০ ১১:০৫ : অপরাহ্ণ
সিএসপি নিউজ : বিদেশে কাজের উদ্দেশ্যে অনিয়মতান্ত্রিক পন্থায় গমনকারীদের প্রতিরোধে একটি সমন্বিত ব্যবস্থা গ্রহণের লক্ষ্যে শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিমানবন্দর ব্যবস্থাপক উইং কমান্ডার মো. ফরহাদ হোসেন খানের সভাপতিত্বে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত সভায় ইমিগ্রেশন পুলিশ, সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষ, গোয়েন্দা সংস্থা, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, এয়ার এরাবিয়া, নভোএয়ার, ইউএস বাংলা, এপিবিএন, এয়ারপোর্ট সার্ভিসেস এজেন্ট, স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়ি, প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক, জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিসের অফিস প্রধান উপস্থিত ছিলেন।
সভায় প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের উপপরিচালক মোহাম্মদ জহিরুল আলম মজুমদার অভিবাসী সংক্রান্ত আইন, বিধি, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় ও এর অধীন দফতরগুলোর কার্যক্রম এবং প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের কার্যক্রমের বিষয়ে একটি প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন। সভায় বিমানবন্দর সেবার মাধ্যমে অভিবাসী কর্মীদের বিমানবন্দর ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত বিষয়ে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান সংক্রান্ত জাতীয় স্টিয়ারিং কমিটির সিদ্ধান্তগুলো উত্থাপন করা হয়।
সভায় ইমিগ্রেশন পুলিশের পক্ষে জানানো হয়, বিশেষ করে ভিজিট ও ট্যুরিস্ট ভিসায় বহির্গমনের ক্ষেত্রে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভিজিলেন্স টার্স্ক ফোর্স কমিটির সিদ্ধান্ত অনুসারে গমনকারীর বাহ্যিক অবয়ব, আগের বিদেশ ভ্রমণের তথ্য, বয়স, সামাজিক অবস্থা যাচাই করে শুধু প্রকৃত ভিজিটর বা ট্যুরিস্টদের বিদেশ গমনের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে এবং ভিজিট ভিসা ব্যবহার করে যেন কেউ কাজের উদ্দেশ্যে বিদেশ যেতে না পারে সে বিষয়ে ইমিগ্রেশন পুলিশ সতর্ক রয়েছে।
আলোচনা শেষে অভিবাসী কর্মীর সঙ্গে সব সংস্থার শোভন আচরণ, অভিবাসন সংক্রান্ত নিয়ম নীতি সম্পর্কে প্রান্তিক পর্যায়ে প্রচার প্রচারণা বাড়ানো, অবৈধভাবে বিদেশ গমনের ঝুঁকি সম্পর্কে প্রচার, বিদেশে অবস্থিত দূতাবাস ও শ্রমকল্যাণ উইংয়ের মাধ্যমে অভিবাসন সম্পর্কিত প্রচার, অভিবাসন সংক্রান্ত বিষয়ে নিয়মিত সভা আহবান, রিক্রুটিং এজেন্সি ও ট্রাভেল এজেন্সির সঙ্গে নিয়মিত মতবিনিময় সভা আয়োজন, বিমানবন্দরে প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের বহির্গমন ও আগমন কাউন্টার বাড়ানো ও ব্যাপক প্রচারণার উদ্যোগ নেওয়ার বিষয়ে সবার ঐক্যমত পোষণ করেন।
বিমানবন্দর ব্যবস্থাপক সব সংস্থা/প্রতিষ্ঠানের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে অভিবাসন বান্ধব বিমানবন্দরে রূপান্তরের লক্ষ্যে আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেন।