মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সময় : দুপুর ১:০২

শিরোনাম

রাজধানীর উত্তরা থেকে প্রতারক চক্রের প্রধানকে আটক করেছে র‍্যাব


প্রকাশের সময় :১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ৫:২১ : অপরাহ্ণ
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
রাজধানীর উত্তরা থেকে অভিনব কায়দায় প্রতারণার মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের প্রধান দি ইউনির্ভাসিটি অব কুমিল্লা এর চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ট্রাস্টি আ স ম বায়েজীদ উল হাসান (৪৬) নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে র্যাব-১।

শনিবার ১৩ ফেব্রুয়ারী বিকাল ৪ঃ৩০ মিনিটের সময় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন র্যাব-১ এর অধিনায়ক লেঃ কর্নেল মোঃ মুনির হাসান। আটককৃত আসামী বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ থানাধীন কালিকাবাড়ী হাট এলাকার আ ক ম শফিকুল ইসলামের ছেলে।

্যাব সুত্রে জানা যায় ,গত ১৩ মার্চ ২০১৮ তারিখ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন ও সরকার অনুমোদনপ্রাপ্ত দেখিয়ে দি ইউনির্ভাসিটি অব কুমিল্লা এর চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ট্রাস্টি আ স ম বায়েজীদ উল হাসান (৪৬) বাংলাদেশ পুলিশ কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিঃ এর পলওয়েল কারনেশন শপিং সেন্টার হতে মাসিক ভাড়া চার লক্ষ টাকা চুক্তিতে ১০ হাজার বর্গফুট স্পেস ভাড়া নেয়। উক্ত প্রতিষ্ঠানটির এপ্রিল ২০১৮ মাস হতে ডিসেম্বর ২০১৯ তরিখ পর্যন্ত ভাড়া ও বিদ্যুৎ বিল বাবদ সর্বমোট বিশ লক্ষ আট হাজার ছয়শত তের টাকা পরিশোধ না করে গত ০১ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে পালিয়ে যায়। এ বিষয়ে ‘পলওয়েল কারনেশন শপিং সেন্টার’ এর ম্যানেজার মোঃ জহিরুল হক বাদী হয়ে ডিএমপি, উত্তরা পূর্ব থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে বাদী র‌্যাব-১, এর আইনগত সাহায্য কামনা করলে র‌্যাব-১ গুরুত্বের সাথে ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।

্যাব-১ এর সহকারী পরিচালক, সহকারী পুলিশ সুপার মুশফিকুর রহমান তুষার জানান, মামলার পলাতক আসামী রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানাধীন সেক্টর-১৪ এলাকায় অবস্থান করছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে আভিযানিক দলটি রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানাধীন সেক্টর-১৪, বাসা নং-২৭, (আইয়ুব হাউজ) অভিযান চালিয়ে প্রতারক চক্রের সক্রিয় সদস্য আ স ম বায়েজীদ উল হাসানকে আটক করা হয়।

তিনি আরও জানান, আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, সে দি ইউনির্ভাসিটি অব কুমিল্লা এর চেয়ারম্যান এবং ম্যানেজিং ট্রাস্টি। সে ‘পলওয়েল কারনেশন শপিং সেন্টার’ হতে প্রতি মাসে চার লক্ষ টাকায় ১০ হাজার বর্গফুট স্পেস ভাড়া নিয়ে এপ্রিল ২০১৮ মাস হতে ডিসেম্বর ২০১৯ তরিখ পর্যন্ত ভাড়া ও বিদ্যুৎ বিল বাবদ সর্বমোট বিশ লক্ষ আট হাজার ছয়শত তের টাকা পরিশোধ না করে পালিয়ে যায়। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে যে, সে বিভিন্ন সময়ে বন্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ে সাইন বোর্ড লাগিয়ে শত শত জাল শিক্ষা সনদ বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। গ্রেফতারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে বলেও জানান এই র্যাব কর্মকর্তা।

সিএসপি/কেসিবি/৫ঃ১৪পিএম

ট্যাগ :