মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সময় : দুপুর ১২:৪০

শিরোনাম

৭ কোটি মানুষ যখন ঐক্যবদ্ধ হইয়াছে তখন দাবী আদায় করিয়া ছাড়িব-শেখ মুজিব


প্রকাশের সময় :২২ মার্চ, ২০২১ ১১:৪১ : অপরাহ্ণ

মোহাম্মদ ওমর ফারুক দেওয়ান:
১৯৭১ সালের ২৩শে মার্চের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ছিল বেশ নাটকীয়। মুজিব-ইয়াহিয়া-ভূট্টো বৈঠকে সমঝোতার নাটক মঞ্চায়নের  পাশাপাশি পশ্চিম পাকিস্তান থেকে অস্ত্রও সামরিক বাহিনীর সদস্যরা আসতে থাকে বঙ্গবন্ধুর অগোচরে।ব্যবহারের অনুমতি নেওয়া হয় মালদ্বীপের গান নামক বৃটিশ ঘাটি। বঙ্গবন্ধুকে চার-দফা থেকে ইয়াহিয়া টলাতে পারেন নি। তিনি স্পষ্টতই বলেছেন, ‘৭ কোটি মানুষের মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত সংগ্রাম অব্যাহত থাকিবে। আমরা নিশ্চয়ই জয়লাভ করিব; বন্দুক, কামান, মেশিনগান কিছুই জনসাধারণের মুক্তিরোধ করিতে পারিবে না।’

ভূট্টোর উপস্থিতিতে মুজিব-ইয়াহিয়া বৈঠক
সংকট নিরসনের পথে?
বিক্ষুব্ধ বাংলার দশদিগন্তে মুক্তিকামী গণমানুষের একটানা সর্বাত্মক অসহযোগ আন্দোলনের পটভূমিতে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার বুকে রাজনৈতিক পর্যায়ে পাকিস্তানের ভাগ্য নির্ধারণের প্রশ্নে বুঝাপাড়া চুড়ান্ত পর্যায়ে উপনীত হইয়াছে। ৩রা মার্চ অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় পরিষদ অধিবেশন আকস্মিকভাবে স্থগিত ঘোষণা এবং তৎপরবর্তী ঘটনাবলীর অপরিহার্য পরিণতি হিসাবে যে চরম রাজনৈতিক সঙ্কট সৃষ্টি হইয়াছে, বাংলার জনগণের পক্ষ হইতে শেখমুজিব কর্তৃক উত্থাপিত ৪-দফা দাবী পূরণের মধ্য দিয়া উহা অবসানের সম্ভাবনা সৃষ্টি হইয়াছে বলিয়া মনে করা হইতেছে। অবিলম্বে সামরিক শাসন প্রত্যাহার ও ক্ষমতা হস্তান্তরের ব্যাপারটি চুড়ান্ত করার জন্য প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া শেখ মুজিব এবং পশ্চিমাঞ্চলীয় নেতাদের সঙ্গে আলোচনা ও আনুসঙ্গিক ব্যবস্থা গ্রহণ করিতেছেন । এই ব্যাপারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত ঘোষণার জন্য আগে না হইলে ও শীঘ্রই প্রেসিডেন্ট জাতির উদ্দেশ্যে বেতার ভাষণ দিবেন বলিয়া আশা করা যাইতেছে।—

গতকাল ঢাকায় এই মর্মে আভাস পাওয়া গিয়াছে যে, রাজনৈতিক সঙ্কট নিরসনের পন্থা চুড়ান্ত করার পদক্ষেপ হিসাবে প্রেসিডেন্ট দুই একদিনের মধ্যেই বাংলাদেশ এবং পশ্চিম পাকিস্তানের নেতাদের এক যৌথ বৈঠকে মিলিত করার চেষ্টা করিতে পারেন।সম্ভবত সেই উদ্দেশ্যেই তিনি কাইয়ুম খানকে তলব করিয়াছেন।অন্য পশ্চিমাঞ্চলীয়গণ-প্রতিনিধিত্বশীল নেতারা বর্তমানে ঢাকায় রহিয়াছেন।

এদিকে গতকাল বঙ্গবন্ধু শেখমুজিব এবং জনাব ভূট্টো আলোচনার অগ্রগতি হইতেছে বলিয়া মন্তব্য করিয়াছেন । চারি দফা পূর্বশর্ত পূরণ করা না হইলে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল আওয়ামীলীগ জাতীয় পরিষদে যোগ দিবেনা বলিয়া ঘোষণা করিয়া এব্যাপারে শেখ সাহেব যে আপোষহীন ভূমিকা গ্রহণ করিয়াছেন, ইয়াহিয়া-ভূট্টো উভয়েই উহার প্রতি শ্রদ্ধাশীল হইয়াছেন বলিয়া অনুমিত হইতেছে।সম্ভবত: সেই কারণেই অর্থাৎ সামরিক আইন প্রত্যাহারও গণপ্রতিনিধিদের নিকট ক্ষমতা হস্তান্তরসহ বঙ্গবন্ধুর দাবী পূরণের ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তই ভূট্টোর উপস্থিতিতে শেখ সাহেবের সঙ্গে বৈঠক চলাকালেই গতকাল প্রেসিডেন্ট জাতীয় পরিষদেও অধিবেশন আবার স্থগিত করিয়াছেন।যদি শেষ মুহুর্তে ব্যক্তি বিশেষের কারণে অতি নাটকীয় কিছু না ঘটে তবে অচিরেই সামরিক আইন প্রত্যাহার এবং সংশ্লিষ্ট অপরাপর ব্যবস্থা গৃহীত হইতে যাইতেছে।আরও জানা গিয়াছে যে, শেখ মুজিবের দাবী অনুসারে সামরিক আইন প্রত্যাহারের পরই নয়া সরকারের রূপরেখা নির্দিষ্ট হইবে।ইতিমধ্যে শেখসাহেব গতকালও দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে বলিয়াছেন যে, ‘আমাদের আন্দোলন চলিতেছে।লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকিবে।’তিনি আরও বলিয়াছেন, বাংলার মানুষ শান্তিপূর্ণ ভাবে সমস্যার সমাধান চায়। কিন্তু উহানা হইলে সংগ্রামের মাধ্যমেই তারা লক্ষ্যে গিয়া পৌছিবে।——

জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত
প্রেসিডেন্ট জেনারেল আগা মোহাম্মদ ইয়াহিয়া খান আগামী ২৫শে মার্চ ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্ যঅধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করিয়াছেন।গতকাল দুপুর বারোটায় মুজিব-ইয়াহিয়া আলোচনার সংবাদ গ্রহণের জন্য প্রেসিডেন্ট ভবনের সামনে সমবেত সাংবাদিকদেও নিকট প্রেসিডেন্ট ভবনের জনৈক মুখপাত্র প্রেসিডেন্টের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান। প্রেসিডেন্টের ঘোষণায় জাতীয় পরিষদের অবিবেশন অনুষ্ঠানের পরবর্তী তারিখ সম্পর্কে কিছুই উল্লেখ করা হয় নাই।—

৭ কোটি মানুষ যখন ঐক্যবদ্ধ হইয়াছে তখন দাবী আদায় করিয়া ছাড়িব -শেখ মুজিব

গতকাল স্বীয় বাসভবনের সম্মুখে জমায়েত বিপুল জনতার উদ্দেশে ভাষণ দানকালে আওয়ামীলীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান দৃপ্ত কণ্ঠে ঘোষণা করেন : ৭ কোটি মানুষের মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত সংগ্রাম অব্যাহত থাকিবে।আমরা নিশ্চয়ই জয়লাভ করিব; বন্দুক, কামান, মেশিনগান কিছুই জনসাধারণের মুক্তি রোধ করিতে পারিবেনা। শেখ মুজিবুর রহমান ৭ কোটি বাঙালীর মুক্তি অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত যে-কোন ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকিতে জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানান। —।শেখ মুজিবুর রহমান বলেন, ৭ কোটি মানুষ যখন ঐক্যবদ্ধ হইয়াছে তখন দাবী আদায় করিয়া ছাড়িব। ২৩ বৎসর মার খাইয়াছি, আর মার খাইতে রাজী নই;শহীদদেরও রক্ত বৃথা যাইতে দেওয়া হইবেনা; প্রয়োজন হইলে আরও রক্ত দিব। কিন্তু এবার সুদে-আসলে বাংলার দাবী আদায় করিয়া আনিব।—

‘আজ থেকে আমরা আর প্রাক্তন নই-’
নেতাও জনতার সহিত একাত্মতা ঘোষণা প্রসঙ্গে অবসরপ্রাপ্ত সৈনিক, নাবিক ও বৈমানিকগণ
বিমান, নৌ এবং স্থলবাহিনীর প্রাক্তন সৈনিকগণ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কর্মসূচীকে সর্বাত্মকভাবে সফল করিয়া তোলার জন্য গতকাল শপথ গ্রহণ করিয়াছেন। গতকাল বিকালে বায়তুল মোকাররম প্রাঙ্গনে আয়োজিত বিমান, নৌ এবং স্থলবাহিনীর প্রাক্তন সৈনিকদের এক সম্মিলিত সমাবেশে বাংলাদেশের সকল অবসরপ্রাপ্ত সৈনিককে নিজ নিজ এলাকায় আওয়ামীলীগ সংগ্রাম পরিষদ এবং স্বেচ্ছা সেবকদের সহিত সহযোগিতা করিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অহিংস-অসহযোগ আন্দোলনকে সফল করিয়া তোলার ব্যাপারে আত্মনিয়োগ করার জন্য আহ্বান জানান হয়।—

রাজপথে উত্তাল গণমিছিল
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে অহিংস-অসহযোগ আন্দোলনের গতকাল ২১ তম দিন অতিবাহিত হয়।গতকাল বিক্ষুব্ধ মানুষের সভা-শোভাযাত্রা এবং গগণ বিদারী শ্লোগানে ঢাকা নগরী পুনরায় প্রকম্পিত হইয়া উঠে।

আজ ‘বর্জনসপ্তাহ’শুরু
জাতীয় শ্রমিকলীগের উদ্যোগে গঠিত ‘স্বাধীন বাংলাদেশ শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ’এক নির্দেশে আজ ২৩শে মার্চ হইতে একসপ্তাহ ব্যাপী ‘পাকিস্তানী দ্রব্যবর্জন সপ্তাহ’ পালন করিবার জন্য বাংলার সর্বস্তরের জনসাধারণের নিকট আহ্বান জ্ঞাপন করিয়াছেন।এই সপ্তাহে পাকিস্তানে উৎপাদিত পণ্যবর্জন করা হইবে।—

বাংলাদেশে গমনের জন্য পাকিস্তানী বিমান ও জাহাজকে মালদ্বীপের বৃটিশ ঘাঁটি ব্যবহারের অনুমতি দান
ওয়াকিফহাল সূত্রে প্রাপ্ত এক সংবাদে প্রকাশ, মালদ্বীপের গান নামক স্থানে বৃটেনের যে ঘাঁটি রহিয়াছে, তাহা বাংলাদেশ গামী পাকিস্তানী সামরিক বিমান ও জাহাজ সমূহকে ব্যবহার ও সুযোগ-সুবিধা গ্রহণের জন্য পাকিস্তানকে অনুমতি প্রদান করিয়াছে।সিংহলী বন্দরে অনুরূপ সুযোগ-সুবিধা প্রার্থনা করিয়া পাকিস্তান সরকার সিংহলের নিকট অনুরোধ জানায়।কিন্তু সিংহল উক্ত অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করার পর বৃটেনের নিকট পাকিস্তান মালদ্বীপের বৃটিশ ঘাঁটি ব্যবহারের অনুমতি প্রার্থনা করিলে বৃটিশ সরকার তাহা মঞ্জুর করে।—

লেখকঃপরিচালক, প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি)

ট্যাগ :